পার্শ্ববর্তী জেলায় রক্তিম পঞ্চগড়ের রক্তদান

শেয়ার করুন:

রক্তিম পঞ্চগড় এর সভাপতি ও সাধারন সম্পাদক মহোদয়ের একসাথে রক্তদান।

আজ ২২ নভেম্বর ২০২২, রক্তিম পঞ্চগড় এর সম্মানিত সভাপতি, বি নেগেটিভ ডোনার বাংলাদেশ এর রংপুর বিভাগীয় সভাপতি মো. আলমগীর হোসেন এর ১০ম (B-) বি নেগেটিভ এবং ‘রক্তিম পঞ্চগড়’ এর সাধারণ সম্পাদক ওয়াসিম আকরাম এর ১১তম (A+) এ পজিটিভ রক্তদান সম্পন্ন হলো।
দুজনেই পঞ্চগড় থেকে প্রায় ৪০ কিলোমিটার দূরে পার্শ্ববর্তী জেলার ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে গিয়ে রক্তদান করেন।
আলমগীর হোসেন এবং ওয়াসিম আকরাম দুজনেই নিয়মিত রক্তদান করেন এবং রক্তিম পঞ্চগড় সংগঠনের মাধ্যমে গত ২ বছরের বেশি সময় ধরে মুমূর্ষু রোগীদের জন্য রক্ত যোগাড় করারও কাজ করে আসছেন। বিশেষ করে করোনা মহামারীর সময় যেখানে অনেকে ভয়ে স্বজনদের দেখতে হাসপাতাল যেতেন না, ঐ সময়ে পঞ্চগড়ে রক্তদান করতে সংগঠনটি ব্যপক ভূমিকা রাখে। মূলত ঐ সংকটময় সময়েই সংগঠনটি সুসংগঠিত হয়ে আত্মপ্রকাশ করে মানুষের পাশে থেকে সকলের মনে জায়গা করে নেয়।

উল্লেখ্য, গত ১০ দিন আগে আলমগীর হোসেন রক্তদানের উদ্দেশ্য ঠাকুরগাঁও আসলে ক্রসম্যাচিং করার পর ডাক্তার জানায় রোগীকে আর রক্ত লাগবেনা, তখন রক্ত না দিয়েই পঞ্চগড় ফেরৎ যান। অবশেষে গতকাল ২১ নভেম্বর আবারও রক্তশুন্যতার অন্য আরেক রোগী খালেদা’র (২৮) জন্য রক্তের প্রয়োজন হলে আজকে ২২ নভেম্বর রক্তবন্ধু’র পঞ্চগড়ের প্রতিনিধি (স্বেচ্ছাসেবী ও এডমিন) রাব্বী ইমন সহ পঞ্চগড় থেকে রওনা হয়ে ঠাকুরগাঁও এসে জনাব আলমগীর তার ১০ম B(-ve) রক্তদান সম্পন্ন করেন।
এদিকে ব্যবসায়িক কাজে ওয়াসিম আকরাম আগেই ঠাকুরগাঁওয়ে অবস্থান করায় পরে আলমগীর এর সাথে মিলিত হয়ে হাসপাতালে যায় এবং সেখানে রক্তশুন্যতার আরেক রোগীর জন্য জরুরী A+ রক্তের অনুরোধ আসলে ওয়াসিম জানান তার নিজেরই রক্তদানের সময় হয়েছে এবং তিনি নিজেই দিতে রাজি হয়ে যান ।
ফলে ওয়াসিম আকরামও তার ১১ তম রক্তদান সম্পন্ন করেন।

  • আজকের ২২.১১.২২ তারিখটি একটি প্যালিনড্রোম সংখ্যা। Palindrome হল এমন কিছু বিশেষ শব্দ কিংবা সংখ্যা যার আরম্ভ বা শেষ দুদিক থেকেই পড়লে শব্দের উচ্চারণ আর অর্থের কোন বদল হয় না; সংখ্যার ক্ষেত্রে সংখ্যার মান একই থাকে।

আমরাও আশা রাখি রক্ত গ্রহীতারাও একদিন সুস্থ হয়ে রক্তদাতা হবেন।
তাহলে ব্যাপারটা আমাদের কাছে প্যালিনড্রোমিক হবে আরকি!

হ্যাপি প্যালিনড্রোমিক ব্লাড ডোনেটিং!

একজন রক্তদান করলে তবেই অন্যজন রক্ত পান। তাই স্বেচ্ছায় রক্তদানে এগিয়ে আসুন। আপনার আত্মীয় স্বজন ও বন্ধুবান্ধবদেরও রক্তদানে উৎসাহিত করুন।

 


শেয়ার করুন: